জেনে নিন বিসিএস এ ভাল করার কয়েকটি উপায়

বাংলাদেশে প্রায় অনেক শিক্ষার্থীর প্রথম পছন্দ বি সি এস জব। যদিও ইদানিং অন্যান্য সরকারি ও ব্যাঙ্ক জব গুলি তে তরুণ-তরুণী দের আগ্রহ বাড়ছে । বিসিএস দেওয়ার ইচ্ছে থাকলে অনেক ধৈর্য-এর প্রয়োজন । সমস্ত প্রক্রিয়া অর্থাৎ পিলি, রিটেন ও ভাইবা শেষ করতে করতে প্রাই ২ থেকে ২.৫ বছর সময় লেগে যায়। তাই বিসিএস এর জন্য প্রস্তুতি নিতে দীর্ঘ সময়ের প্রয়োজন। মনে রাখবেন শর্টকাট এ হয়ত সাময়িক সফলতা আসতে পারে কিন্তু  কখনো চূড়ান্ত সফলতা আসবে না। তবে কিছু নিয়ম আপনি অনুসরন করতে পারেন।

নিয়মিত পত্রিকা পড়তে হবে । বাংলা  ইংলিশ দুটোই। এ থেকে আপনি বিভিন্ন বিষয়ের তথ্য সংরক্ষন এ রাখতে পারবেন।

গণিত ও ব্যাকরণ এ প্রস্তুতির জন্য ক্লাস ৮,৯,১০ এর পাট্যপুস্তক অনুসরন করুন।

স্নাতক বা স্নাতকোত্তর পড়ার সময় থেকেই অল্প অল্প করে পরাশুনা শুরু করে দিতে হবে।

সাধারন জ্ঞ্যান এর জন্য আজকের বিশ্ব বা নতুন বিশ্ব অনুসরণ করতে পারেন, যদিও অনেক সময় প্রিন্টিং ভুল বা অনেক তথ্য আপডেট হয় , তাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে একেবারে সম্প্রতি যে সংস্করন বের হয়েছে সেটা ব্যবহার করা । এবং নিজে তথ্য যাচাই করে দেখা ।

পূর্ববর্তী কোন পরিক্ষার্থীর নোট সংগ্রহের চেষ্টা করুন , এবং সে গুলিকে স্টাডি করুন ।

ইংরেজি তে ভাল করার উপায় একটাই -ইংরেজিকে ভয় না পেয়ে গ্রামার এর সব খু্টিনাটি বুঝে পড়ুন । মুল কথা বেসিক ক্লিয়ার করা ।

কোচিং করতে পারেন তবে বাসায় সেলফ স্টাডিটা খুবই প্রয়োজনীয় । কোচিং এ যে পরীক্ষা গুলি গুরুত্ব সহকারে দিবেন , তাহলে নিজেকে যাচাই করার সুযোগ পাবেন আপনি।

বাসায় সময় নির্ধারন করে নিজে নিজে পরিক্ষা দেন ।এতে আপনার ঐ বিষয় এ ধারনা ক্লিয়ার হবে ।

গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গুলি কোথাও শর্ট করে লিখে রাখতে পারেন, যাতে করে পরবর্তিতে এক নজর চোখ বুলালেই সব আপনার মনে পড়ে ।

পূর্ববর্তী বিসিএস এ ঠিকেছে এরকম কেও পরিচিত থাকলে তার সহায়তা নিতে পারেন।

বাজারে অনেক ধরণের সাজেশন ব্যাংক পাওয়া যায় , সেই গুলি ভাল ভাবে পড়তে পারেন । কিন্তু সম্পূর্ণ ভাবে এই গুলির উপর ভরসা করা যাবে না ।

নেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে সতর্ক হতে হবে , কারন নেটে অনেক ভুল তথ্য থাকতে পারে।

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিটি পুরো মনোযোগ সহকারে পড়ে নিবেন ।ফরম কেনা থেকে জমা পর্যন্ত যা যা কাগজ পত্র লাগবে তার সমস্ত কিছু ফটোকপি করে ফাইলে গুছিয়ে রাখুন ।

ফরম ফিলাপের সময় ক্যাডার চয়েসে সতর্ক থাকুন। আপনি যে ক্যাডার এ ঢুকতে চান সেটাই সবার প্রথমে দিন।

সবশেষ হল অধ্যবসায় আর পরিশ্রম এর মাধ্যমে সব কিছু অর্জন করা সম্ভব , আপনি চেষ্টা করে যান সফলতা আপনার আসবেই ইনশাল্লাহ।

 

If you like this post please must share with other people
Share on Facebook
Facebook
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Pin on Pinterest
Pinterest
0Share on LinkedIn
Linkedin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *